পড়া না পারলে চুমু দিতে হবে- এ কেমন শাস্তি শিক্ষকের?


   বেহালার বাসুদেবপুর হাইস্কুলের ঘটনা। স্কুলের এক 
পার্শ্ব শিক্ষকের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন পঞ্চম শ্রেণীর এক ছাত্রী। শিক্ষকের নাম অতনু দাশগুপ্ত। স্কুলে ভৌতবিজ্ঞানের ক্লাস নেন তিনি। ছাত্রীর অভিযোগ, প্রতিদিন তিনি পড়া ধরেন এবং সঙ্গে এটাও জানিয়ে দেন যে কেউ পড়া না পারলে তাকে কান ধরে উঠবোস করতে হবে আর নাহলে তার গালে একটি “হামি” দিতে হবে।
কয়েকজন ছাত্রী শিক্ষকের গালে চুমু দিলেও এই ছাত্রীটি চুমু দিতে অস্বীকার করেন। তখন তাকে ৪০ বার কান ধরে উঠবোস করান শিক্ষক। বাড়ি ফিরে ছাত্রীটি সমস্ত ঘটনা পরিবারকে জানালে তারা পরের দিন স্কুলে হাজির হন। সেখানে কর্তৃপক্ষকে বলার পর অভিযোগ স্বীকার করেন ওই শিক্ষক। তবে স্থানীয় কাউন্সিলর শিপ্রা ঘটক থাকাকালীন একটি মুচলেকা লিখিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয় সেই শিক্ষককে। কিন্তু ব্যাপারটি মিটমাট করে দেওয়ায় অভিযোগ উঠেছে, ছাত্রীটির পরিবারকে হুমকিও দেওয়া হচ্ছে।
স্কুলে পুলিশ এলেও থানায় অভিযোগ দায়ের করেনি সেই পরিবার। তাদের প্রতিবেশীদের দাবি, ছাত্রীটিকে স্কুল থেকে ট্রান্সফার সার্টিফিকেট দিয়ে বহিস্কার করার হুমকি দিয়ে ব্যাপারটি মিটমাট করেন স্থানীয় কাউন্সিলর। এদিকে স্কুল পরিচালন কমিটির পক্ষ থেকে অভিযোগ স্বীকার করে বলা হয় যে স্কুলকে বদনাম হওয়া থেকে বাঁচাতেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *